সাতক্ষীরা সীমান্তের বিপরীতে ভারতে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশী যুবক গুলিবিদ্ধ!

শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

সাতক্ষীরা সীমান্তের বিপরীতে ভারতে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশী যুবক গুলিবিদ্ধ!

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা সীমান্তের বিপরীতে ভারতে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশী যুবক গুলিবিদ্ধ হয়েছে। সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধ সুমন (২৫) কলারোয়া উপজেলার চন্দনপুর ইউনিয়নের গয়ড়া গ্রামের মজিবর রহমানের পুত্র। অবৈধভাবে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে গরু আনতে গিয়ে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) এর গুলিতে সুমন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে জানিয়েছেন তার আপন খালাতো ভাই ড্রাইভার লাল্টু।

লাল্টু বলেন, ‘কলারোয়ার চান্দুড়িয়ার পার্শ্ববর্তী শার্শার রুদ্রপুর সীমান্তের বিপরীতে ভারতের কালাি -তেতুলবাড়িয়া সীমান্তের গড়জালা এলাকায় সুমন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে মোবাইল ফোনে তিনি সীমান্তের ওপারের লোকজনের কাছ থেকে জেনেছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘গরু আনতে সোমবার সন্ধ্যার পর বর্ডার ক্রস করে সুমন। পরে রাতেই গরু নিয়ে ফেরার পথে গড়জালা এলাকায় ভারতীয় কালাি র তেতুলবাড়িয়া ক্যাম্পের বিএসএফ জোয়ানদের হাতে গুলিবিদ্ধ হয় সুমন। তাকে বনগাঁ হসপিটালে নেয়া হয়েছে বলে শুনেছি।’

সীমান্তবর্তী এলাকার কয়েকজনের উদ্ধৃতি দিয়ে কলারোয়া থেকে প্রভাষক আরিফ মাহমুদ জানান, ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে গয়ড়া গ্রামের সুমন, শার্শার দাউদখালী গেটপাড়ার সিরাজুল ইসলামের ছেলে জাহিদ (২২), রুদ্রপুর গ্রামের মৃত আমিন উদ্দীনের ছেলে আব্দুল মাজেদ (৩০) ও জাহাঙ্গীরের ছেলে লিটন (২৪) সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে গরু আনতে যায়। তারা ৩টি গরু নিয়ে ফিরে আসার পথে গড়জালা ঘেরের ভেতর তেতুলবাড়ীয়া ক্যাম্পের বিএসএফ তাদের এ্যাটাক করে। এসময় বাকী ৩জন ১টি গরু নিয়ে পালিয়ে আসলেও গুলিবিদ্ধ অবস্থায় সুমন দু’টি গরুসহ বিএসএফের হাতে ধরা পড়ে।’

তারা আরও জানান, ‘গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর প্রথমে বিএসএফ ক্যাম্পে ও পরে বনগাঁয় হসপিটলে নিয়ে গেছে বিএসএফ। বাংলাদেশের বিজিবি’র সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছে বিএসএফ।’

রুদ্রপুর বিজিবি’র বিওপি কমান্ডার নায়েব সুবেদার আব্দুস সামাদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘এ ব্যাপার বিএসএফের সঙ্গে মঙ্গলবার সকালে একটি পতাকা বৈঠক করা হয়েছে।’
বৈঠকে বাংলাদেশে পক্ষে ছিলেন সুবেদার মশিউর রহমান ও ভারতের পক্ষে ছিলেন এসি সন্তোষ কুমার।

ভারতের কালাি , তেতুলবাড়িয়া ও গড়জালা এলাকাটির কিছু অংশ মূলত কলারোয়ার চান্দুড়িয়া এবং শার্শার দাউদখালী ও রুদ্রপুর সীমান্তের ওপারে। সীমান্তটি ইছামতী নদী দ্বারা বিভক্ত। চান্দুড়িয়া ও দাউদখালী সীমান্তটি একেবারেই পাশাপাশি লাগোয়া হলেও এ দুটি দুই জেলার, দুই উপজেলার ভিন্ন ব্যটালিয়নের ভিন্ন বিওপি’র। দাউদখালী সীমান্ত এলাকা বিজিবির রুদ্রপুর বিওপির অধীনে।

আর গুলিবিদ্ধের ঘটনাটি ভারতের ৬৪ বিএসএফ’র তেতুলবাড়িয়া ক্যাম্পের সদস্যদের হাতে গড়জালা এলাকায় হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে তারা জানতে পেরেছেন-বলেন নায়েব সুবেদার আব্দুস সামাদ। তিনি আরও বলেন, সেটি রুদ্রপুর বিওপির এলাকার ওপারে ভারত সীমান্তের অভ্যন্তরে। তবে গুলিবিদ্ধ যুবক সুমন কলারোয়ার গয়ড়া গ্রামের বাসিন্দা বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

কলারোয়ার চান্দুড়িয়া ও এর পার্শ্ববর্তী শার্শার দাউদখালী সীমান্তে টহলরত একাধিক বিজিবি সদস্য ঘটনাটি শুনেছেন বলে অনানুষ্ঠানিকভাবে জানান।

Please Share This Post in Your Social Media











© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD