সুন্দরগঞ্জে পিতার সম্পত্তি উদ্ধার করতে ব্যার্থ প্রশাসনিক সহযোগীতা পায়নি অসহায় তছির

শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

সুন্দরগঞ্জে পিতার সম্পত্তি উদ্ধার করতে ব্যার্থ প্রশাসনিক সহযোগীতা পায়নি অসহায় তছির

শেখ মো: সাইফুল ইসলাম গাইবান্ধা:

গাইবান্ধায় অসহায় বলে একটি পরিবার পিতার পত্তিক সম্পত্তি দীর্ঘ ১৮ বছর থেকে উদ্ধার করার চেষ্টা করলেও ভূমিদর্শু প্রভাবসালীর নিকট থেকে উদ্ধার করতে পায়নি ভূক্তভুগী পরিবার।
সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের কিশামত হলদিয়া মৌজার মৃত জমিল উদ্দিন ইন্তেকালের পর।
তার একপুত্র তছির উদ্দিন ও এক মেয়ে মালেকা বেগমকে পত্তিক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করেছেন।
কিশামত হলদিয়া মৌজার ভূমি দর্শু বাচ্চা মিয়া, অপরিকল্পিত ভাবে মৃত জমিল উদ্দিনের সম্পত্তি হাতিয়ে ন্যায়।
এমনকি ঐ এলাকায় একটি লাঠিয়াল বাহীনি গঠন করে দফায় দফায় অসহায় তছির উদ্দিন ও মালেকা বেগমের উপর দেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দফায় দফায় হামলা চালাতে থাকেন।
তার পরেও তছির পিতার সম্পত্তি পূর্ণ উদ্ধারের জন্য থানায় একের পর এক অভিযোগ করলেও অর্থের কাছে পরাজয় শিকার করেন তছির ও মালেকা।
এপর্যায়ে স্থানীয় ভাবে কয়েক বার সালিশ দরবার করা হলেও তছিরের কাগজপত্র ঠিক পাওয়া গেলেও ক্ষমতার অভাবে দখলে আসতে পারেনি।
গত বছর গাইবান্ধা থেকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় যাওয়ার পথে ভূক্তভুগী তছিরের সঙ্গে দেখা হলে, কান্না জড়িত কন্ঠে তার পিতার সমস্থ জমির কাগজপত্র সংবাদমাধ্যমের হাতে দিয়ে, ব্যাপক অভিযোগ জানান।
ঘটনা স্থল পরিদর্শন করে পাওয়া যায়, বিভিন্ন মামলা ও স্থায়ী মিটিং সালিশের মাধ্যমে ৬ শতাংশ কৃষি জমি তছির কে ছেড়ে দেয়া হয়।
এক পর্যায়ে অভাবের তারোনায় কর্মের উদ্দেশে দিনাজপুর শহরে চলে যায় তছির ও মালেকা।
সেখানে গিয়েও শান্তিতে থাকতে পরেনি তছির ও মালেকা, প্রতিপক্ষ বাচ্চা মিয়া ও তার সন্ত্রাসী ক্যাডার আংগুর মিয়া, দিনাজপুর শহরে গিয়ে তছিরের পার্শে ঘর ভাড়া নিয়ে দন্ড সৃষ্টি করেন।
এক পর্যায়ে দিনাজপুর কোতোয়ালী থানায় কয়েকটি অভিযোগ দায়ের করেন তছির ও মালেকা।
বারবার অর্থে হেড়ে যাওয়ার পর তছির বাড়িতে ফিরে আসেন, তছিরের সেই ৬ শতাংশ জমি দুই বছর পরে থাকার পর, ভূমিদর্শু বাচ্চা মিয়া আবার ঐ ৬ শতাংশ জমিতে আমন রোপা ধান লাগায়।
এ বিষয়ে প্রতিবাদ করা হলে, বাচ্চা মিয়া ও তার স্ত্রী মিলে জমির ধানের এক অংশ দিতে প্রস্তাব দেয়।
সর্থ অনুযায়ী তছির কে মাত্র একবার এক মন ধান দিয়েছেন বাচ্চা মিয়ার স্ত্রী।
এক পর্যায় জমির ধানের বিষয়ে বাচ্চা মিয়ার স্ত্রীর সঙ্গে সাংবাদিক শেখ মো: সাইফুল ইসলামের কথা হলে, তারা আবারও এক মন ধান দেয় তছির কে।
এর বাহিরে তছির কে আর ঐ ৬ শতাংশ জমির ফসলের ভাগ দেয়া হয়নি।
বর্তমান অসহায় তছিরের পার্শে জনবল না থাকায়, জমি ৬ শতাংশ আবারও নিজ দখলে নিয়ে ভোগ করছেন ভূমিদর্শু বাচ্চা মিয়া।
পিতার সম্পত্তি হাড়িয়ে তছির আজ পাগল হয়ে বিভিন্ন মহলসহ থানা কোর্ড কাচারিতে ছোটাছুটি করলেও আজ পর্যন্ত প্রশাসনিক সহযোগীতা পায়নি তছির ও মালেকা।
তাই সংশিলিষ্ট প্রশাসনিক উদ্ধর্তন কর্মকর্তার সু-দৃষ্টি আকর্ণন।
পুলিশ বাহীনি অসহায় তছির ও মালেকা বেগমকে সহযোগীতা করলে পত্তিক সম্পত্তি পূর্ণ উদ্ধার সম্ভব বলে মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল

Please Share This Post in Your Social Media











© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD