জনশূন্য লক্ষ্মীপুর : অসহায়রা পেল ইউএনও এর খাদ্য সামগ্রী 

শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন

News Headline :
করোনায় বন্ধ হয়নি লক্ষ্মীপুরের ইটভাটার আগুন  টাঙ্গাইলে হতদরিদ্রদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী দিল বিএনপি ফোন পাবার সাথে সাথে ১৫ পরিবারের খাবার পৌছে দিলেন বরিশাল জেলা প্রশাসক মাদারীপুরের রাজৈরে সাংবাদিক পিতার উপর পৈচাশিক হামলা ভোলায় অসহায় পরিবারের পাশে গ্রামীন জন উন্নয়ন সংস্থা প্রবাসে থেকেও অসহায় পরিবারের পাশে প্রবাসী আবুল কাশেম ভোলায় সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটির তীব্র নিন্দা শ্যামনগরে লিডার্সের উদ্যোগে দরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরন করলেন এমপি জগলুল হায়দার লক্ষ্মীপুরে করোনা উপসর্গে এক বৃদ্ধের মৃত্যু : বাড়ি লকডাউন নিজ উদ্যোগে হতদরিদ্রদের খাদ্যসামগ্রী দিলেন প্রবাসী জাহিদুল ইসলাম

জনশূন্য লক্ষ্মীপুর : অসহায়রা পেল ইউএনও এর খাদ্য সামগ্রী 

মোঃআরিফ হোসেন,লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:
প্রাণঘাতী করোনা-ভাইরাস প্রতিরোধে লক্ষ্মীপুরে নিত্যপণ্য,ফার্মেসি,হাসপাতাল,
প্যাথলজি ব্যতিত সকল ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে। একই সাথে সিএনজি,অটো রিকশা,রিকসা,ভ্যানসহ সকল ধরণের যান চলাচলও বন্ধ করে দিয়েছে জেলা প্রশাসক।
এতে ব্যস্ত শহর অনেকটাই ফাঁকা ও জনশূন্য।
আয় বন্ধ হয়ে যাওয়া দিনমজুর ও খেটে খাওয়া মানুষের মধ্যে আতংকে বিরাজ করছে।
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নেতৃত্বে মাঠে টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী।আজ বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরে নতুন ৬৯ জনসহ মোট ৮৭২ জন হোম কোয়ারাইন্টাইনে আছে। হোম কোয়ারাইন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের বাড়িতে গিয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর অধীনে সেনাবাহিনী টহল দিচ্ছে। এছাড়াও জনসচেতনতায় কাজ করছে জেলা প্রশাসন,পুলিশ প্রশাসন,উপজেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন সহ সকল জনপ্রতিনিধিরা।এদিকে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছেন। সকালে সদর উপজেলা জকসিন বাজারের বিভিন্ন স্থানে পায়ে হেঁটে চাল-ডাল, তেল-লবণসহ খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন ইউএনও। এতে প্রতিটি পরিবারের জন্য এক সপ্তাহের খাদ্যসামগ্রী দেয়া হয়।সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিল জানান, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে হাঁট বাজার বন্ধ হলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুক্ষীণ হবে ক্ষুদ্র ও ছিন্নমূল মানুষরা। তাদের আয় রোজগারে পুরো পরিবার চলে। তাই আমার সামর্থ্য অনুযায়ী তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছি।এ দিকে জেলা শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী শহরের অপ্রয়োজনীয় সকল দোকান বন্ধ রয়েছে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বাহির হচ্ছেন না। জন- সচেতনতায় মাঠে কাজ করছেন জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন।

Please Share This Post in Your Social Media










© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD