মহেষখলা সীমান্তে চলছে চোরাকারবারিদের রমরমা ব্যবসা

রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:০৯ পূর্বাহ্ন

মহেষখলা সীমান্তে চলছে চোরাকারবারিদের রমরমা ব্যবসা

সুরঞ্জন তালুকদার, সুনামগঞ্জ:
বাংলাদেশ ও ভারতের আন্ত সীমান্ত চোরাচালানের অভয়ারণ্য হয়ে উঠেছে সুনামগঞ্জের মধ্যনগর থানার মহেষখলা সীমান্তবর্তী এলাকা।বর্তমানে করোনা ভাইরাস কে উপেক্ষা করে সীমান্তে কঠোর নিরাপত্তা থাকা সত্ত্বেও বিজিবি ও বিএসএফের নাকের ডগা দিয়ে চোরাইপথে আমাদানি -রপ্তানি চালিয়ে যাচ্ছে চোরাচালানীরা।
কিছুদিন আগেও যেখানে মাথায় বস্তা নিয়ে রাতের আঁধারে লুকিয়ে-চাপিয়ে চোরাচালানের পণ্য বহন করত চোরাকারবারিরা, সেই তারাই এখন দিনে-দুপুরে বস্তা ভরে প্রকাশ্যে করে সীমান্তে পণ্য আনা-নেওয়া করে।এছাড়াও রাতের আধারে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আসছে ভারতীয় গরু। যেখানে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
মহেষখলা বাজারে আসা ক্রেতারা জানান, প্রতিদিন সকালে আমাদের অঞ্চলের আদিবাসী চোরাকারবারী কিছু মহিলা আছে যারা বাংলাদেশ থেকে মাছ নিয়ে ভারত সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে বিক্রি করে। আবার ভারত থেকে বিভিন্ন ধরনের পণ্য নিয়ে আসছে যেমন পেয়াজ,আদা,মরিচ,লবণ,জিরা,ধনিয়া,তেজপাতা,তামাক জাত দ্রব্য,পান-সুপারী ইত্যাদি।
এছাড়াও কড়ইবাড়ি,ঘিলাগড়া,গঙ্গাছড়া,বান্দ্রাছড়া সীমান্ত পাড়ি দিয়ে আসছে ভারতীয় গরু। এই চোরাচালানের সাথে জড়িত বাংলাদেশী গরু পাচার কারীরা হলেন,কলতাপাড়া গ্রামের কাজল মিয়া,নজরুল মিয়া,বাহর উদ্দিন,গোলগাঁও গ্রামের হাসমত,রুবেল শরিফ,মাটিয়ারবন গ্রামের আফাজ,আছব,জব্বার,আয়নাল,মিষ্টার মিয়া,মজিদ,হারিছ উদ্দিন,সুলতান মিয়া। লক্ষিপুর গ্রামের কুর্জ মিয়া।কড়–ই বাড়ি গ্রামের আতাবুর, শুক্কুর,খোকন।আমিনুল,ফারুক,বাঁকাতলা গ্রামের আবু তালেব আরোও ১০/১২ জন। ভারতে আমাদের দেশের চেয়েও করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় বেশী।
এই চোরাচালানীর সাথে জড়িত আদিবাসী মহিলাদের ম বান্দ্রা গ্রা‌মের রা‌ন্টিলা হাজং, ওব‌হেলাতলী, রামনাথপুর, ঘিলাগড়া গ্রামের ৫-৬ জন,মোহনপুর গ্রা‌মের রো‌কি বানাইসহ ৪/৫জন। বংশীকুন্ডা (উঃ) ইউনিয়ন পরিষদের স্বাস্থ্য পরিদর্শক আবু নোমান রুবেল জানান,প্রকাশে আমাদের মহেষখলা বাজারে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে যেভাবে ভারতীয় পণ্য আসছে।এতে করে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে এই চোরাচালানী পন্যের মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ হতে পারে।
এই ব্যাপারে আমাদের স্বাস্থ্য সচেতন হওয়া উচিত। মোহনপুর বিজিবি ক্যাম্পের ল্যান্স নায়েক সুবেদার মাহতাব উদ্দিন জানান,সীমান্তে চোরাচালান বন্ধ করার জন্য আমরা কঠোরভাবে টহল দিচ্ছি।তবে তার দাবী বিজিবির কঠোর নজেদারির জন্য মহেষখলা সীমান্তে এখন আর কোনো চোরাচালানী পন্য আনা নেওয়া করে না।

 

Please Share This Post in Your Social Media











© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD