প্রশাসনের উদাসীনতায় নকিপুর বাজারের ৯৬ ব্যবসায়ী চরম দুর্ভোগে

বৃহস্পতিবার, ১৬ Jul ২০২০, ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন

প্রশাসনের উদাসীনতায় নকিপুর বাজারের ৯৬ ব্যবসায়ী চরম দুর্ভোগে

সাতক্ষীরা: শ্যামনগর প্রতিনিধি:
প্রশাসনের উদাসীনতা ও দাপ্তরিক কর্মকাণ্ডের দীর্ঘসূত্রিতার কারণে শ্যামনগর উপজেলা সদরের নকিপুর বাজারের ৯৬ ব্যবসায়ী চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে। সরকারি হাট-বাজার নীতিমালা মেনে রাজস্ব প্রদানের পর গত ৩ বছরেও বন্দোবস্তকৃত জায়গা বুঝে না পেয়ে এসব ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন ধরে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, স্থানীয় প্রশাসনের কর্তব্য ব্যক্তিদের উদাসীনতার কারণে প্রান্তিক এসব ব্যবসায়ী নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছে। কাগজপত্র পর্যালোচনা সাপেক্ষে, বন্দোবস্তকৃত জায়গা অতিসত্বর বুঝিয়ে দিয়ে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কতৃক ঘোষিত মুজিববর্ষ কে সামনে রেখে বেকারত্ব দূরীকরণে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ দাবি করছেন তারা। জানা গেছে ২০১৬ সালে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) সরেজমিনে তদন্ত করে পেরিফেরি ভুক্ত নকিপুর বাজারের ৪৩ শতাংশ জায়গা ৯৬ জন ব্যবসায়ীর অনুকূলে বন্দোবস্ত প্রস্তাব করেন। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)মহোদয়, প্রস্তাবিত বন্দোবস্তের নথি অনুমোদন করলে প্রান্তিক এসব ব্যবসায়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর দপ্তরে নির্ধারিত রাজস্ব প্রদান সাপেক্ষে নিজ নিজ  দলিল গ্রহণ করেন। অভিযোগ উঠেছে এসব ব্যবসায়ীদেরকে শ্যামনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর দপ্তর থেকে দলিল হস্তান্তর করা হলেও তাদেরকে নির্ধারিত জায়গা আজও পর্যন্ত  বুঝিয়ে দেওয়া হয়নি। তাদের অভিযোগ নানা অজুহাতে কর্তৃপক্ষের কালক্ষেপণের কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ও হয়রানির শিকার এসব ব্যবসায়ীরা এক পর্যায়ে বিভাগীয় কমিশনার, খুলনা ও জেলা প্রশাসক, সাতক্ষীরা এর দপ্তরে লিখিত অভিযোগ জানিয়ে বন্দোবস্ত পাওয়া জায়গা বুঝিয়ে দেওয়ার দাবি জানান। এর আগে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এম,এম মাহমুদুর রহমান সরেজমিনে নকিপুর বাজারের পেরিফেরিভুক্ত(বন্দোবস্ত দেওয়া)  বাজারের জায়গা পরিদর্শন করেন। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মহোদয় সরজমিনে পরিদর্শন কালে ব্যবসায়ীদের বৈধ কাগজপত্র পর্যালোচনা করে পুনরায় পেরিফেরিম্যাপ সংশোধনপূর্বক পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি করে দেন। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)এর নেতৃত্বে জেলার এস এ ও এল এ শাখার ২ সার্ভেয়ারসহ উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার এবং ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা কে সংশোধিত ম্যাপ প্রস্তুতির জন্য ১৫ কার্যদিবসের সময় নির্ধারণ করে দেন। অভিযোগ উঠেছে গত ২০১৯ সালের ৫ই আগস্ট অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) কর্তৃক বেঁধে দেওয়া ১৫ দিনের সময়সীমা ৫মাস আগেই অতিক্রান্ত হওয়া সত্ত্বেও অদ্যবধি সংশ্লিষ্টরা সংশোধিত ম্যাপ জমা দেননি। ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেছেন,ম্যাপ প্রস্তুত কমিটি তাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন না করায় তারা গত ৩ বছরের রাজস্ব পরিশোধ সত্ত্বেও শুধুমাত্র প্রশাসনের উদাসীনতায় জায়গা বুঝে না পেয়ে নিদারুণ দুরবস্থার মধ্যে দিনাপতিপাত করছে। এসব সংশোধনের দায়িত্ব পাওয়া কমিটির প্রধান শ্যামনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)জনাব আব্দুল হাই সিদ্দিকী এর সাথে কথা বলে জানা যায় বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে

Please Share This Post in Your Social Media










© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD