আরও চার জেলার প্রাথমিকের নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত

শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০১:১৮ অপরাহ্ন

News Headline :
স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভোলা সদর এসিল্যান্ডের অভিযান স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ভোলায় ৪৯ জনকে জরিমানা ব্যারিষ্টার ইমন এবং সহধর্মীণীর করোনা মুক্তি কামনায় মধ্যনগরে দোয়া ও প্রার্থনা ভোলার ইলিশায় ৬ কেজি গাঁজাসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ী আটক ভোলা পুলিশের আয়োজনে অগ্নি-নির্বাপণ কর্মশালা ও মহড়া অনুষ্ঠিত ভোলায় আদালতের গাড়ী চালক আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে হয়রানি ও প্রতারণার অভিযোগ ভোলার আদালতে আরো একটি ডিজিটাল ডিসপ্লে বোর্ড স্থাপন ভোলায় নওজোয়ান ক্রীড়া চক্র ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত ভোলায় বিএনসিসি এর উদ্যোগে মাস্ক,লিফলেট ও শীত বস্ত্র বিতরণ ভোলায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে উত্তর দিঘলদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লিয়াকত হোসেন মনসুর

আরও চার জেলার প্রাথমিকের নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত

বিশেষ প্রতিনিধি:
সোমবার আরও চারটি জেলার প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম ছয় মাসের জন্য স্থগিত করেছেন মহামান্য হাইকোর্ট। নিয়োগ বঞ্চিত প্রাইমারি শিক্ষকদের করা রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে সোমবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি মাহামুদুল হাসান তালুকদারের হাইকোর্ট বেঞ্চ  এ আদেশ প্রদান করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন এ্যাড.কামাল হোসেন।
স্থগিত হওয়া জেলা গুলো হলো গোপালগঞ্জ  গাজীপুর,সুনামগঞ্জ ও শরীয়তপুর জেলা। রবিবার(২৬ জানুয়ারি) ২১ টি জেলার নিয়োগ কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিতাদেশ দিয়েছিলেন মহামান্য হাইকোর্ট। স্থগিতাদেশ হওয়া জেলাগুলোর মধ্য গোপালগঞ্জ ও গাজীপুর জেলাও অন্তর্ভুক্ত ছিলো। আজ নতুন করে আরও দুটি সুনামগঞ্জ ও শরীয়তপুর জেলায় নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে।
এর আগে গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর  দেশের কয়েকটি জেলার নিয়োগ প্রার্থীদের করা এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ নিয়োগের বৈধতা নিয়ে রুল জারি করেন।রুলে প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩ লঙ্ঘন করে গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর ঘোষিত ফল কেন আইন বর্হিভূত ঘোষণা করা হবে না এবং একইসঙ্গে ঘোষিত  ফল বাতিল করে প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩ অনুসরণ করে নতুন ফল কেন ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চাওয়া হয়েছে। এ রুলের ফলে অনেক জেলার নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করে প্রাইমারি শিক্ষা অধিদপ্তর।
আইনজীবী কামাল হোসেনের সেল ফোনে  ০১৭১৬-২১০০৩৬  স্থগিত হওয়া বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা ২০১৩ এর ৭ ধারায় বলা হয়েছে, এই বিধিমালার অধীন সরাসরি নিয়োগযোগ্য পদগুলোর ৬০ শতাংশ নারী প্রার্থীদের,২০ শতাংশ পৌষ্য প্রার্থীদের এবং বাকি ২০ শতাংশ পুরুষ প্রার্থীদের দিয়ে পূরণ করা হবে। কিন্তু ২৪ ডিসেম্বর ঘোষিত ফলে সেটা অনুসরণ করা হয়নি। সে প্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট ২৬ জানুয়ারি ২১টি জেলায় নিয়োগ কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন। আজ আরও চারটি জেলায় নিয়োগ কার্যক্রম স্থগিত করেন মহামান্য হাইকোর্ট।

Please Share This Post in Your Social Media











© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD