বরিশালে রাতের আধারে দেহ ব্যবসার কেন্দ্র আবাসিক হোটেল, ব্যাবসায়ী ও খদ্দের হলো শিক্ষার্থী

মঙ্গলবার, ১৪ Jul ২০২০, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন

বরিশালে রাতের আধারে দেহ ব্যবসার কেন্দ্র আবাসিক হোটেল, ব্যাবসায়ী ও খদ্দের হলো শিক্ষার্থী

 

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশালের লঞ্চঘাট, ডিসি ঘাট , নথুল্লাবাদ বাস ষ্ট্যান্ড, রূপাতলি বাস স্ট্যান্ডে গজিয়ে ওঠা আবাসিক হোটেল গুলোতে জমজমাট হয়ে বসেছে দেহ ব্যবসার আসর। যেখানে পন্য হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন করছেন বরিশালের নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীরা এবং খদ্দেরদের অধিকাংশ হলেন ছাত্র।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল লঞ্চঘাটের হোটেল স্বাগতম, হোটেল সিকদার, হোটেল খান , হোটেল গ্রান্ড প্লাজা, হোটেল চিল , হোটেল অতিথি তে চলছে দেহ ব্যবসা। যেখানে দেহব্যবসায় জরিত বেশির ভাগ ই শিক্ষার্থী।

তথ্যে জানা যায় যে, আবাসিক হোটেল গুলোতে বরিশাল মহিলা কলেজ, বিএম কলেজ, বরিশাল কলেজ , আলেকান্দা সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীরা দেহ ব্যবসার সাথে জড়িত। পতিতা হিসেবে শিক্ষার্থীরা নিজেদের রাতের অন্ধকারে দেহ ব্যবসার সাথে জড়িয়ে ফেলেছেন। এবং খদ্দের হিসেবে যারা আসেন তাদের বেশিরভাগই ছাত্র।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন হোটেল কর্মচারী বলেন, তাদের হোটেলের ৯০ ভাগ পতিতা ছাত্রী। যারা রাতে হোটেলেই থাকেন এবং দেহ ব্যবসার সাথে জড়িত। আর খদ্দেরদের মধ্যে ৬০ ভাগ ছাত্র। বেশিরভাগ শিক্ষার্থী অর্থ উপার্জনের পথ হিসেবে দেহ ব্যাবসা কে বেছে নিয়েছেন।

অনেকেই রাতে হোটেলে আসেন নির্দিষ্ট খদ্দেরদের জন্য। অনেকেই আবার বিভিন্ন স্থানে যান‌ । তবে সকল কর্মকান্ড এই হোটেল গুলো থেকেই পরিচালিত হয়।

জানা যায়, এই সব হোটেল গুলোতে দিনের বেলায় ৫০০ টাকার বিনিময়ে ২ ঘন্টার জন্য রুম পাওয়া যায়। আর এই সময়ে যারা আসেন তাদের বেশিরভাগই ছাত্র/ছাত্রী। যারা প্রেম করার নামে এই রুম গুলো ব্যবহার করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রশাসনিক কর্মকর্তা বলেন, বিভিন্ন সময়েই এই হোটেল গুলোতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। কিন্তু অল্প সময় পরে আবার যেমন কাজ তেমন ভাবেই হয়। এর কারণ হচ্ছে, প্রশাসনের এবং বরিশালের শির্স স্থানীয় অনেকেই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই ব্যাবসায়ের সাথে জড়িত।

Please Share This Post in Your Social Media










© AMS Media Limited
Developed by: AMS IT BD