Connect with us

সারাদেশ

বরিশালে পিস্ত-গুলিসহ ডাকাত দলের ৬ সদস্য গ্রেপ্তার

Published

on

বরিশাল প্রতিনিধি ॥

বরিশালে দেশীয় তৈরি পিস্তল, আট রাউন্ড গুলি ও ডাকাতির সরঞ্জামসহ আন্তজেলা ডাকাত দলের সরদারসহ ছয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আটককৃর্তদের ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন- বরগুনা জেলার আমতলী থানার কলাগাছিয়া গ্রামের মৃত আমজেদ হাওলাদারের ছেলে ডাকাত সরদার মো. দেলোয়ার হোসেন, গৌরনদী উপজেলার চররমজানপুর গ্রামের মো. সেলিম সরদারের ছেলে রবিউল ইসলাম, পটুয়াখালী জেলার পসারবুনিয়া গ্রামের মৃত আনোয়ার মীরার ছেলে মোতালেব মীরা, বরগুনার আমতলী উপজেলার ছোটবগি গ্রামের মো. আ. কাদের প্যাদার ছেলে হারুন, বরগুনার বেতাগী উপজেলার মো. সৈয়দ ফকিরের ছেলে মো. আমিনুল ফকির, পটুয়াখালী সদরের মো. সোহরাব সিকদারের ছেলে মো. ছগির সিকদার।

ছয় ডাকাত গ্রেপ্তার ও ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত অস্ত্র ও সরঞ্জাম উদ্ধারের ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় বরিশাল জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, চলতি বছরের ১১ জুন বরিশালের গৌরনদী উপজেলার কেফায়েতনগর এলাকার তানিয়া বেগমের বাসার ঘরের গ্রিল কেটে ডাকাত দল পরিবারের সকল সদস্যদের হাত পা ও মুখ বেঁধে স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন, নগদ টাকা লুট করে। ওই ঘটনায় গৌরনদী থানায় মামলা দায়ের করেন তানিয়া বেগম।

পরে গৌরনদী থানা ইনচার্জ (ওসি) আফজাল হোসেনের নির্দেশনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মো. হেলাল উদ্দিনসহ পুলিশের একটি দল দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে আন্তজেলা ডাকাত সরদার মো. দেলোয়ার হোসেনসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করে।

এ সময় গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে দেশীয় তৈরি একটি পিস্তল, ৮ রাউন্ড গুলি, স্বর্ণ, রেঞ্জ, প্লাস, চাপাতি, ছুরি ও নগদ ২ হাজার টাকা উদ্ধার করে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, প্রথমদিকে গ্রেপ্তারকৃত আসামি রবিউল ইসলাম এবং মোতালেব মীরা ডাকাতির ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত থাকার বিষয়ে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। তাদের দেয়া স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ডাকাতির ঘটনায় লুণ্ঠিত স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

 

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: